বন্ধু টিভি
অন্যান্য

পত্নীতলায় প্রতিষ্ঠিত তিন সন্তানের মা বিনা চিকিৎসায় মৃত্যুর দিন গুনছে

মাহমুদুন্নবী, নওগাঁ জেলা প্রতিনিধিঃ
বাবা মা খেয়ে না খেয়ে সন্তানদের মূখে খাবার তুলে দেন তাদের মানুষের মতো মানুষ তৈরী করার জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করেন। প্রতিটি বাবা মায়ের আশা বা স্বপ্ন থাকে তাদের সন্তান বৃদ্ধ বয়সে বা শেষ সময় তাদের দেখাশুনা করবে। কিন্তু কিছু কিছু সন্তান নামক কুলাঙ্গার আছে যারা নিজের জন্মদাতা বাবা মাকে বৃদ্ধ বয়সে দেখাশুনা তো দূরের কথা খোঁজ খরব পর্যন্ত রাখেনা, এরই একটি বাস্তব উদাহরণ হলো নওগাঁর পত্নীতলার আকবরপুর ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ রেজাউল করিম চৌধুরী ( হেলাল চৌধুরী ) মা আমেনা বেগম বিনা চিকিৎসায় বিছানায় যন্ত্রণায় কাঁতরাচ্ছে আর ধুঁকে ধুঁকে মৃত্যুর দিন গুনছে। পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, আকবরপুর ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ডের মধুইল চৌধুরী পাড়াতে মৃত আব্দুল মোজাফফর চৌধুরী তার পরিবার নিয়ে বসবাস করতেন। তিনি ছিলেন মধুইল প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক ছিলেন। মোজাফফর চৌধুরী।

বছর কয়োক আগে স্ত্রী আমেনা বেগম তিন ছেলে সন্তান ও ৫ মেয়ে সন্তান কে রেখে চলে যায় না ফেরার দেশে। বর্তমানে তার সন্তানরা সবাই সমাজের বুকে প্রতিষ্ঠিত। মোজাফফর চৌধুরীর মৃত্যুর পর স্ত্রী আমেনা বেগম যেন সন্তানদের নিকট হয়ে যায় খেলার পুতুল, অথচ এই সংসারের জন্য সন্তানদের জন্য আমেনা বেগম তার বাবার নিকট থেকে প্রায় ১৫ বিঘা সম্পত্তি এসেছেন কিন্তু আজ সেই সন্তানরাই তাদের মা আমেনা বেগমকে বিনা চিকিৎসায় বাড়িতে ফেলে রেখেছে। তার প্রথম ছেলে খোরশেদুল আলম ( পনি চৌধুরী) ও ছোট ছেলে রেজাউল করিম চৌধুরী ( হেলাল চৌধুরী) মায়ের কোন খোঁজ খরব নেয় না বললেই চলে। বর্তমানে আমেনা বেগম তার দ্বিতীয় ছেলে ইমদাদুল চৌধুরী নিকট আছে কোন রকম ভাবে। ছেলেদের চিকিৎসার কথা বললে তারা জানান, মা আর কত দিনই বা বাঁচবে অযথা টাকা নষ্ট করে লাভ কী? আমেনা বেগমের শরীরে যখন প্রথম রোগ ধরা দিয়েছিল তখন ডাক্তার বলেছিলেন, অপারেশন করার কথা, কিন্তু কোটি টাকা থাকার শর্তেও সন্তানরা মায়ের অপারেশন করে নি। আজ আমেনা বেগম ক্যান্সারের রোগী, থেরাপি তো দূরের কথা ঔষুধ ও পায়না খাবার জন্য, শরীরে দিয়েছে পোঁকা, সেই পোঁকার কাঁমড়ে আমেনা বেগম চিৎকার করেন।

তার আত্নচিৎকারে যেন এলাকার আকাশ বাতাস ভারি হয়ে যায় কিন্তু তার সন্তানদের কান পর্যন্ত পৌঁছায় না মায়ের আত্নচিৎকার। স্থানীয় কিছু ব্যক্তি নাম প্রকাশ অনিচ্ছুক শর্তে বলেন, তারা আজকে আমাদের সমাজের নেতা সেঁজেছে তারা নাকি জনসেবা করবে? যারা নিজের মায়ের সেবাই করেনা তাহলে তারা কিভাবে জনগণের ও দেশের সেবা করবে?
আমেনা বেগমের চিকিৎসার ব্যাপারে তার আত্নীয়স্বজনরা সূধী সমাজ, প্রশাসন ও স্থানীয় রাজনৈতিক ব্যক্তিদের সার্বিক সহযোগীতা কামনা করেছেন।

Related posts

দুবাই থেকে আলবেনিয়ার ভিসা পেতে যা করতে হবে

admin

কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা থানার সামনে থানা পুলিশের বিশেষ অভিযান।

admin

কঠিন হয়ে গেল দুবাই ভ্রমণের শর্ত

admin

Leave a Comment

Translate »